Where Needs Meet Excellence

তুরস্ক

তুরস্কের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর আহ্বান

তুরস্কের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ এবং বাংলাদেশ থেকে আরও বেশি পণ্য আমদানির আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)।

সম্প্রতি তুরস্ক সফররত ডিসিসিআই ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদল ইস্তাম্বুল চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত ‘তুরস্ক-বাংলাদেশ বিজনেস ফোরাম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ আহ্বান জানায়।

বাংলাদেশ-তুরস্কের মধ্যকার বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা বাড়াতে ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমানের নেতৃত্বে ৮৬ সদস্যবিশিষ্ট একটি প্রতিনিধিদল বর্তমানে তুরস্ক সফর করছে।

রিজওয়ান রাহমান বলেন, ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশ ও তুরস্কের মধ্যে ৮৭১ দশমিক ৫৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য হয়েছে। দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বাংলাদেশের অনুকূলে থাকলেও তা ত্বরান্বিত করার জন্য দুই দেশের উদ্যোক্তাদের আরও বেশি হারে বিনিয়োগে উৎসাহিত হতে হবে। কারণ, বর্তমান বাণিজ্যের পরিমাণ সন্তোষজনক নয়।

ডি-৮ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে কার্যকর অর্থনৈতিক যোগাযোগ স্থাপনে বাংলাদেশ ও তুরস্ক যৌথভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বাংলাদেশের শিল্পখাতের আধুনিকায়নে তুরস্কের প্রযুক্তি সহায়তা দেয়া, এসএমই খাতের সক্ষমতা বৃদ্ধি, যৌথ গবেষণা কার্যক্রম এবং অ্যাগ্রো ভেলু চেইনের উন্নয়নে তুরস্ককে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান রিজওয়ান রাহমান।

তুরস্ক চেম্বারের নির্বাহী কমিটির সদস্য বুরহান পোলা বলেন,  তুরস্ক ও বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অত্যন্ত সম্ভাবনাময়। দেশটি গত কয়েক দশকে ব্যবসা ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধন করেছে।

তিনি বাংলাদেশের অর্থনীতির উন্নয়নে বাজার সম্প্রসারণের পাশাপাশি রফতানিমুখী পণ্যের বহুমুখীকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের জন্য তুরস্ক একটি অপার সম্ভাবনাময় বাজার হতে পারে মন্তব্য করে বুরহান পোলা বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ চামড়া, ওষুধ, তৈরি পোশাক ও হালকা প্রকৌশল শিল্পে আশাব্যঞ্জক উন্নতি করতে পেরেছে।

এ সময় দুই দেশের বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তাদের নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষার আহ্বান জানান তিনি। একইসঙ্গে দুই দেশের বাণিজ্য সম্প্রসারণে বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরের প্রস্তাব করেন তিনি।

ইস্তাম্বুল চেম্বার অব কমার্স প্রায় ৬ লাখ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান সংবলিত বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ বাণিজ্য সংগঠন।

বিজনেস ফোরাম শেষে ইস্তাম্বুল চেম্বারের প্রায় ৩৫০টির বেশি সদস্য প্রতিষ্ঠানের মধ্যকার বিটুবি ম্যাচ-মেকিং অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে দুই দেশের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ সম্ভাবনা, বাণিজ্য সম্প্রসারণ নিয়ে আলোচনা করেন। বিটুবি সেশনে অংশগ্রহণকারী তুরস্কের উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে বিনিয়োগে ইতিবাচক আগ্রহ প্রকাশ করেন।

এছাড়া ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রাহমান ইস্তাম্বুল চেম্বারের সভাপতি সেকিব এভডাচিভের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সভা করেন।

সূত্র: সময় নিউজ

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!

Get In Touch